আমাদের সমগ্র মনুষ্যজাতির পরামর্শদাতা পরম পূজনীয় দর্শনযোগী ভীমানান্দ (শ্রী ভীমচন্দ্র গুড়ে) মহারাজের প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন

ভীমানান্দ মহারাজ

আবির্ভাব -- বাংলা ১৪ ই পৌষ ১৩৩৩ ৷ 

 

কুলকুন্ডলিনী লাভ -- আশ্বিন মাসের শেষাশেষি, বাংলা ১৩৬৫ ৷ 

 

সিদ্ধিলাভ -- বাংলা ১৬ই শ্রাবণ ১৩৬৬ ৷ 

 

অপ্রাকৃত জ্ঞানলাভ / সৃষ্টি রহস্য ভেদ -- সিদ্ধিলাভের ২৭ বছর পর ৷

 

তিরোভাব -- বাংলা ১১ই আষাঢ় ১৪০৯ ৷

পারিবারিক জীবন

জন্ম -- বুধবার, বাংলা ১৪ ই পৌষ ১৩৩৩, নিজ মামা ৺ যতীন্দ্র মোহন মন্ডলের বাড়িতে ৷

 

জন্মস্থান -- কুখাবাড়, অবিভক্ত মেদিনীপুর অধুনা পূর্ব মেদিনীপুর জেলার কোলা (কোলাঘাট) এর পাশের গ্রাম ৷

 

বাবা -- ৺ কৃষ্ণপদ গুড়ে, পেশা - কলকাতার বেলেঘাটার খেজুরবাগান অঞ্চলের এক পোটম্যন (স্টিলের তৈরি) কারখানার মিস্ত্রি ৷

 

মা -- ৺ সরস্বতী গুড়ে, পেশা - গৃহস্থালির কর্মাদি ৷

 

বিবাহ -- বাংলা ৯ অগ্রহায়ণ ১৩৫৬/৫৭, মেশারা গ্রাম (কোলাঘাট থেকে আনুমানিক ৩ কিমি) নিবাসী ৺ ঈশান চন্দ্র সাউ মহাশয়ের একমাত্র কন্যা কুমারী সরলা সাউ (বয়স ১৫ / ১৬ বছর) এর সাথে ৷

 

ভ্রাতা -- শ্রী অর্জুন চন্দ্র গুড়ে(বর্তমানে মৃত), পেশা- দৈনিক কুলি-মজুর ৷

 

ভগ্নী –- একজন - বিধবা, বর্তমানে গৃহস্থালির কর্মে রতা ৷

 

স্ত্রী -- শ্রীমতী সরলা গুড়ে, পেশা- গৃহস্থালির কর্মাদি ৷

 

পুত্র, চারজন -- পঞ্চানন, সনাতন, স্বপন এবং বিমল বর্তমানে সবাই বিবাহিত, প্রত্যেকেই ভিন্ন ভিন্ন কর্মে নিযুক্ত ৷

 

কন্যা, তিনজন -- মুক্তা, নমিতা ও সবিতা বর্তমানে সবাই বিবাহিতা, প্রত্যেকেই গৃহস্থালির কর্মে রতা ৷

 

মৃত্যু -- বুধবার, বাংলা ১১ই আষাঢ় ১৪০৯ নিজ বসত বাটিতে ৷

ছাত্রজীবন – লেখাপড়া

১) শুরু , কলকাতায় বাবার কাছে থেকে (কিছুদিনের জন্য)৷

 

২) নিজ বাড়ির কাছে মামার সান্নিধ্যে (টোলে) থেকে (কয়েক মাসের জন্য)৷

 

৩) টালি কারখানায় মালিকের ছেলেদের কাছে (কাজের ফাঁকে ফাঁকে)৷

 

৪) শেষ , পাইকপাড়ি সত্যানন্দ যোগাশ্রমে বয়স্কদের জন্য শিক্ষা ব্যবস্থপনায়(Night school for aged) প্রত্যহ রাত্রিতে, পণ্ডিত ঈশ্বর চন্দ্র বিদ্যাসাগর প্রণীত বর্ণ পরিচয়ের ১ম ও ২য় ভাগ পাঠ৷

বাসনা

সাধন ভজনের মধ্য দিয়ে ঈশ্বর তত্ত্ব ও সৃষ্টি রহস্য জানা ৷

কর্ম জীবন

১) শুরু , বাড়ির কাছে এক টালি তৈরির কারখানায় দৈনিক ০৯ পয়সা পারিশ্রমিকে ফাই-ফরমাশ খাটার কাজে ১২/১৩ বছর বয়সে ৷
 
 

২) কয়েক মাস পর কোলাঘাটের সন্নিকটে পাইকপাড়ি গ্রামের কোলে বুড়োর টালি তৈরির কারখানায় ০৬ আনা (৩৭ পয়সা) রোজে দৈনিক মজুর হিসাবে ৷

 

৩) ঐ গ্রামের খড়িচক পুলের কাছে ১৪/১৫ বছর বয়সে বেচারাম পাল এবং ফেলুচরণ পালের (বর্তমানে উভয়েই মৃত) টালি তৈরির কারখানায় দৈনিক মজুর হিসাবে ৷ পরবর্তীকালে ২০/২১ বছর বয়স থেকে টালি ও মটকা গড়নের কাজে দক্ষ মিস্ত্রী হিসাবে স্থায়ীভাবে দৈনিক ১০ আনা (৬২ পয়সা) পারিশ্রমিকে ৷

 

৪) বর্ষাকালে টালি কারখানার কাজ বন্ধ থাকার কারণে কোলাঘাটের পাট গুদামে মাল তোলা ও খালাস করার কাজে কুলি হিসাবে সাময়িকভাবে ২/৩ মাসের জন্য, কোন কোন বছর চুক্তির ভিত্তিতে ৷

 

৫) কর্মজীবন শেষ দক্ষ শ্রমিক হিসাবে, ৺ বেচারাম পালের টালি কারখানায় (শেষের দিকে দৈনিক ৭০.০০ টাকা পারিশ্রমিকে) শরীর দূরারোগ্য ক্যান্সার ব্যাধিতে আক্রান্ত হওয়ার আগে, বাংলা ১৪০৭ সাল পর্যন্ত ৷

সাধন ভজন

 

১) শরীর গঠন -- প্রথমে শরীর চর্চা ও যোগব্যায়াম শিক্ষার মধ্য দিয়ে পাইকপাড়ি সত্যানন্দ যোগাশ্রমে ১৫/১৬ বছর বয়স থেকে ৷

 

২) সাধন ভজন (প্রাণায়াম ও ক্রিয়াযোগ) -- শুরু বাংলা ১৩৬১/৬২ সাল থেকে ঐ আশ্রম ও নিজ বাড়িতে ।

 

৩) প্রেরণাদাতা -- স্বামী ব্রহ্মানন্দজী, অধ্যক্ষ পাইকপাড়ি সত্যানন্দ যোগাশ্রম ৷

 

৪) সাহায্যকারী পুস্তক -- ভক্তমাল, বিষ্ণুপুরাণ, কৈবর্তপুরাণ, রামায়ণ, মহাভারত ও গীতা (কলকাতার মহেশ লাইব্রেরি থেকে সংগ্রহ করা) ৷

 

৫) কুলকুণ্ড়লিনী শক্তি অর্জন -- আশ্বিন মাসের শেষাশেষি, বাংলা ১৩৬৫ সন, স্থান - সত্যানন্দ যোগাশ্রম, সন্ধ্যাবেলায় সাধন ভজনের সময় ৷

 

৬) সিদ্ধিলাভ বা কূটস্থ ভেদ -- সৃষ্টির আলো (ত্রিনয়ন) পাওয়া, বাংলা ১৬ই শ্রাবণ ১৩৬৬ দুপুর একটায়, স্থান - কুখাবাড় নিজ মাটির বাড়ির দোতলার ঘরে ৷ দৈববাণী প্রাপ্তি -- "একদিন ভারতীয় শ্রেষ্ঠ দর্শনযোগী রূপে প্রতিভাত হবে"

 

৭) সৃষ্টি রহস্য ভেদ -- ত্রিনয়ন পাওয়ার ২৭ বছর পর ৷